প্রসঙ্গ: ওই লেখার ফাঁকে ডট (.) দেওয়া

 *প্রসঙ্গ: ওই লেখার ফাঁকে ডট (.) দেওয়া*  
নিয়ম বিরুদ্ধভাবে লেখার মাঝে ইচ্ছে খুশি ডট(.) বসাবেন না
■■ কাজলকান্তি কর্মকার: অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়া বা অন্য কোনও জায়গায় লিখতে গিয়ে ইচ্ছে খুশি ডট (.) বসিয়ে দেন। তা কিন্তু ঠিক নয়।
মনে রাখতে হবে— ! , . ? : ; ‘’ “ ” এইগুলো যেমন punctuation বা বিরামচিহ্ন সন্নিবেশ (যতিচিহ্ন সন্নিবেশ) ঠিক … এটাও (এই তিনটে ডট বা ফুটকি) একটা punctuation.
•যদি আমরা শুধু একটা . (ডট) বসাই তাহলে সেটা ইংরেজির পূর্ণচ্ছেদ হয় (বাংলার নয় কিন্তু)।কিন্তু কথার টান বা অসম্পূর্ণ কথা বোঝাতে এক সঙ্গে তিনটে ডটই বসাতে হয়। ওটাকে ইংরেজিতে ellipsis বলে। ওই ক্ষেত্রে দুটো বা অনেকগুলো বসানে যাবে না। তিনটেই বসাতে হয়।
আবার বলি, ওই তিনটে ডট (...)কে ইংরেজিতে ellipsis এবং বাংলায় ‘ঊহ্য শব্দ’ বলা হয়। ডট বসানোর নিয়মটা একটু লক্ষ্য করে দেখা যাক—
•বিন্দুযতি /ডট 
দুক্ষেত্রে ডট বসে। এক ক্ষেত্রে একটি ডট। অন্য ক্ষেত্রে তিনটি ডট। এর বাইরে কোনও ডট বসানো যায় না।
(১) শব্দ সংক্ষেপের জন্য একবিন্দু (.)। উদাঃ ড. আবুল পাকির জয়নুল-আবেদিন আব্দুল কালাম ( ‘ডক্টরেট’-কে সংক্ষেপ করতে ‘ড.’ করা হয়েছে। যেমন: বি.এ/বিএ, এম.এ/এমএ, পি.এইচ.ডি/পিএইচডি, ডি.লিট/ডিলিট।
সেই সঙ্গে ইংরেজির দাঁড়ি চিহ্নের জন্য (বাংলার নয়) এক বিন্দু (.) ব্যবহার করা হয়।
(২) আর কথা সংক্ষেপের জন্য ত্রিবিন্দু(…) বা ellipsis বসে। এটাকে ঊহ্য শব্দও বলে । উদাহরণ: তোমাকে অনেক কিছুই বলার আছে। না, থাক…, তুমি সেটা কী ভাববে সেটাই ভয়ের কারণ।
হাতের কাছেই প্রমাণ পাওয়া যাবে, হোয়াটসঅ্যাপে যখন অপর প্রান্ত থেকে কেউ টাইপ করেন লক্ষ্য করলে দেখা যাবে   ‘typing...' টাইপের পাশে তিনটে ডটই (...) দেওয়া থাকে।
মোট কথা কথা গোপন রাখতে, শব্দ-বাক্য-পংক্তি-চরণ-স্তবক অথবা অনুচ্ছেদ উহ্য রাখতে ত্রিবিন্দু(…) বা ellipsis বসাতে হয়। কিন্তু আমাদের মধ্যে অনেকেই না জেনে ত্রিবিন্দুর বেশি ব্যবহার করেন। কিছুটা আনলিমিটেড কলের মতো…😊


💬কাজলকান্তি কর্মকার || রাজ্যের প্রথম শ্রেণীর একটি বাংলা দৈনিক সংবাদপত্রের সাংবাদিক
ঘাটাল || পশ্চিম মেদিনীপুর
M&W: 9933066200
eMail: ghatal1947@gmail.com


0/Post a Comment/Comments

Previous Post Next Post
close